নিজস্ব সংবাদদাতা: ফেনীর জেলা প্রশাসকের কাছে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে করুণ আকুতি জানিয়েছেন পরশুরাম উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মজুমদার। এসময় তিনি পরশুরাম পৌরসভার এক কাউন্সিলরের নেতৃত্বে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে হামলা করা হয় বলে উল্লেখ করেন। তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে সন্ত্রাসীরা তার বাড়িতে হামলা চালায়। তার মার্কেটেও হামলা করা হয়। জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় কামাল উদ্দিন মজুমদার প্রশাসনের কাছে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে এভাবে আইনি সহায়তা কামনা করেন।
এসময় সভায় ফেনীর জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজ্জামান, অতি. জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুমনী আক্তার, স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক পিকেএম এনামুল করিম, ফেনী পৌরসভার মেয়র হাজী আলাউদ্দীনসহ জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
কামাল মজুমদার আরো বলেন, তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান হয়ে নিরাপদ না হলে কেউ নিরাপদ নয়”। তার উপর হামলার ঘটনায় পরশুরাম পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এনামুল হক এনামের নাম উল্লেখ করে তিনি বাকিদের নাম জেলা প্রশাসককে লিখিতভাবে জানাবেন বলে নিশ্চিত করেন। এর আগে তার উপর হামলা হলে তিনি ফেনীর এসপি খোন্দকার নুরুন্নবীকে ফোন করেন। এসময় এসপি তাৎক্ষণিক ফোর্স পাঠানোয় তিনি প্রাণে বেঁচে যান।
ঐ দিন যদি এসপি ফোন না ধরতেন এবং দ্রুত ফোর্স না পাঠাতেন তাহলে হয়তো সন্ত্রাসীরা তাকে মেরে ফেলতো। এ ব্যাপারে তিনি ভীতসন্ত্রস্ত। যারা তার উপর হামলা করেছে তারা আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী। তিনি তাদের উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেন। অভিযোগের বিষয়ে জানতে পরশুরাম পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এনামুল হক এনামের সাথে কথা বলা হলে তিনি জানান, কামাল চেয়ারম্যান তাকে কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চান না। তাই আগামী পৌর নির্বাচনে তাকে মনোনয়ন বঞ্চিত করতে এমন অভিযোগ করা হচ্ছে। কামাল উদ্দীন মজুমদারের অভিযোগের বিষয়ে জানতে পরশুরাম মডেল থানার ওসি শওকত হোসেনের কাছে ফোন করা হলে তিনি বলেন, ওনাদের মধ্যে একটু ভুল বুঝাবুঝি হয়েছে। এটা ১৩/১৪ দিন আগের ঘটনা। এটি তেমন কিছুই নয়।

Share Button