স্টাফ রিপোর্টার: কথিত স্ত্রী বনাম বান্ধবী সুমির কাছ থেকে চট্টগ্রামে ইয়াবা উদ্ধারের পর পুলিশের মামলায় এবার আদালতে হাজিরা দিতে গিয়ে কারাগারে গেলেন ছাগলনাইয়া উপজেলার ঘোপাল ইউপি চেয়ারম্যান এফ এম আজিজুল হক মানিক। সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকালে মানিক চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটনের অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট মহিউদ্দিন মুরাদের আদালতে হাজির হয়ে  জামিন আবেদন জানালে আদালত তা নাকচ করে  কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। মানিক ঘোপাল ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক, ছাগলনাইয়া থানা কমিউনিটি পুলিশের সদস্য সচিব, করৈয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও মুহুরীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি।

পুলিশের দায়েরকৃত ইয়াবা মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ৬ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে হালিশহর থানার সবুজবাগ এলাকার কালিবাড়ির সামনে থেকে রেহানা আক্তার সুমি (৩৫) নামে এক নারীকে আটক করে করে পুলিশ। এসময় তার কাছ থেকে ৫০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয় । পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সুমি প্রথমে নিজেকে মানিকের স্ত্রী ও পরে বান্ধবী দাবী করে। এছাড়া তার বহনকৃত ইয়াবা ঘোপাল ইউপি চেয়ারম্যান মানিকের বলে সে পুলিশকে জানায়। এ ঘটনায় হালিশহর থানার এএসআই আবুল হোসেন বাদি হয়ে ফেনী সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের রামপুর এলাকার মো: মোস্তফার মেয়ে রেহানা আক্তার সুমিকে (৩৫) প্রধান আসামী করে ছাগলনাইয়া উপজেলার ঘোপাল ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামের মৃত আমিন শরীফের ছেলে ইউপি চেয়ারম্যান ও আ’লীগ নেতা আজিুল হক মানিক (৪৫) এবং ইকবাল হোসেনের (৩৮) নামে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হালিশহর থানার উপপরিদর্শক শহীদ উল্লাহ বলেন, গ্রেপ্তার ওই নারীর স্বীকারোক্তি মতে, ইয়াবাগুলো ছিল চেয়ারম্যান মানিকের । মহিলার জবানবন্দীর সত্যতা পাওয়ায় মানিককে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হয়। কিন্তু সে পলাতক ছিল। সোমবার আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে আদালত তাকে কারাগারে প্রেরণ করেছে। পরবর্তী শুনানির দিনে পুলিশের পক্ষ থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মানিকের রিমান্ড আবেদন করা হবে।

Share Button